Corporate Work Blog Banner

সঞ্চয়ের পরিকল্পনা করুন, অর্থ সঞ্চয় করুন। কিন্তু কিভাবে?

সঠিক সময়ে অর্থ জ্ঞান অর্জন করতে পারলে স্বপ্ন পূরণে আসতে পারে বাধা। ডাচ একটি প্রবাদ আছে “The art is not in making money, but in keeping it.” আমরা অসংখ্য উদাহরন দেখেছি যে অর্থ উপার্জিত হয়েছে পরিকল্পিতভাবে কিন্তু চলে গিয়েছে অপরিকল্পিতভাবে। উপরের প্রবাদে শিল্প বলতে বোঝানো হয়েছে উপার্জনের পাশাপাশি সঞ্চয়ের পরিকল্পনাটা নিশ্চিত করা বেশী জরুরী। অধিকাংশ বিশেষজ্ঞদের মতে সঞ্চয়ের অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে শিশু/কিশোর বয়স থেকেই। যদিও আমি মনে করি যখনই আপনি উপলদ্ধি করবেন যে সঞ্চয় করা অত্যন্ত জরুরী আপনার জন্য, তখনই শুরু করে দেবেন।



ডেভিড ওয়েলইভার ফাউন্ডার “Money Under 30”, তার এক প্রবন্ধে উল্লেখ করেছেন ৫০/৩০/২০ সূত্রের কথা যেখানে তিনি মাসিক আয়ের ৫০ ভাগ মৌলিক প্রয়োজনে, ৩০ ভাগ সে সমস্ত জায়গায় যেখানে স্বীদ্ধান্ত গ্রহণে বিচক্ষনতার প্রয়োজন এবং বাকি ২০ ভাগ সঞ্চয়। বাংলার মায়েদের মুষ্টি চালের কথা শুনেছেন, প্রতিদিন রান্নার চাল থেকে এক মুষ্টি চাল সঞ্চয় করা? আমি আমার মাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম এই এক মুষ্টি চাল তুমি উঠিয়ে রাখো কেন? তিনি বলতেন বিপদের সময় কাজে লাগবে। সে বয়সে বিপদ শব্দের সাথে আমার তেমন পরিচয় হয়নি। আমার নানীকেও ঠিক এই কাজটি করতে দেখেছি।

আমার মা তার আলমিরার বিভিন্ন তাকে বিভিন্ন শাড়ির ভাজে টাকা লুকিয়ে রাখতেন। যদিও আমার মা জানতেন না যে আমি জানতাম কোন শাড়ির ভাজে কত টাকা আছে। আমার মা গোসলখানায় ঢুকলেই, আমি লুকিয়ে ১০ টাকা নিয়ে দোকানে চলে যেতাম। ছোটবেলায় বাবা কাছ থেকে মাটির ব্যাংক উপহার হিসেবে পেয়েছিলাম। প্রতিদিন বিকেলবেলা বাবা অফিস থেকে ফিরলে আমি মাটির ব্যাংক নিয়ে বাবার কাছে যেতাম। তিনি ১/২/৩/৫/১০ টাকা আমার ব্যাংকে ঢুকিয়ে দিতেন।

আমি অসংখ্য ক্যারিয়ারে সফল ব্যক্তিদের সাথে আলাপ করেছি। দেখেছি প্রত্যেকেই অর্থ সাশ্রয়ের কথা সবার আগে চিন্তুা করে থাকেন। ছোট ছোট খরচও অপরিকল্পিতভাবে করেন না। একভাই তো বলেই ফেললেন, নিজের কামানো টাকা অপ্রয়োজনে খরচ করতে গায়ে লাগে। তবে বুদ্ধিমানেরা অন্যের কামানো টাকা থেকেও সঞ্চয় করতে ভোলেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া এক ছাত্রের সাথে কথা হলো। সে প্রতিমাসে বাবার কাছ থেকে যা পায় সেখান থেকে প্রতিমাসে জমানোর চেষ্টা করে। এখন সে তৃতীয় সেমিস্টারে পড়ছে, ইতিমধ্যে তার কাছে প্রায় ৪৪ হাজার টাকার মতো জমেছে। তার কৌশল ছিলো কোনদিন সে মেসে খালি পকেটে মেসে ফিরতো না এবং ডেবিট কার্ড দিয়ে কখনো সে একবারে সব টাকা তুলে ফেলতো না। পাশাপাশি টিউশনি এবং বিভিন্ন লেখালেখী করে যা কামাতো, সব নিজের ব্যাংক একাউন্টে জমিয়ে রাখতো। তার প্ল্যান সে তার মা-বাবাকে সারপ্রাইজ দেবে।

এখন আমাদের সঞ্চয়ের পরিকল্পনা থাকেনা বললেই চলে। একটাই অযুহাত, মৌলিক চাহিদা মেটাতে গিয়ে হিমসিম খেতে হয়। সঞ্চয় করবো কখন। আসলে এই কথাটা আমি নিজেও অনেকবার বলেছি। ক্যারিয়ারে মাঝামাঝি সময়ে এসে কোন একটি বিপদে পড়ে বুঝতে পেরেছি সঞ্চয় কি জিনিস। তারপর স্বীদ্ধান্ত নিলাম সঞ্চয়ে মনোযোগী হবো। আমি বেশ কিছু স্বীদ্ধান্ত নিলামঃ

  • মৌলিক চাহিদা পূরণ প্রথম লক্ষ্য।
  • অপ্রয়োজনীয় বিষয়ে আবেগ নিয়ন্ত্রণ।
  • ক্রেডিট কার্ড থাকবে তবে নিজের পকেটে নয়। নিজের পকেটে শুধু ডেবিট কার্ড।
  • একক ইনকামের উপর নির্ভরশীল না হওয়া। সেজন্য খুঁজে বের করলাম এমন কি দক্ষতা আছে যা আমি ব্যবহার করে উপার্যন বৃদ্ধি করতে পারি।
  • ব্যাংকে একটি একাউন্ট খুলে ফেললাম। তারপর মাসিক আয়ের মাত্র ২% কোন চিন্তাভাবনা না করে ব্যাংকে রাখা শুরু করলাম। ধীরে ধীরে ২% থেকে ৫% তারপর দেড় বছরের মধ্যে ২০% বৃদ্ধি করলাম।
  • এই পদ্ধতি কাজে এলো। ঐ জমানো টাকা আমার কাজে লাগলো যখন ২০১৬ সালে মা, স্ত্রী ও কন্যাকে সহ পবিত্র হজ্জ্ব পালন করতে গেলাম।

আমি নিশ্চিত, আপনারা যারা আমার এই ব্লগ পড়ছেন তারা সবাই পরিপক্ক এবং কিছুটা বুদ্ধি রাখেন। তাই আবেগ দিয়ে আমার লেখাগুলো না পড়ে, বাস্তবতা মাথায় রেখে ব্লগটি পড়ুন। নিজেকে আপনি প্রশ্ন করুন, আসলেই কি আপনার পক্ষে সঞ্চয় করা সম্ভব নয়? অথবা আগামী ছয় মাসের মধ্যে আপনি কি সঞ্চয় শুরু করতে পারবেন না? অথবা আগামী একবছরের মধ্যে?

যদি মনে করেন সম্ভব তাহলে নীচের ধাপগুলো আপনি অনুসরণ করতে পারেন।

১. অর্থ সঞ্চয় শুরু করার প্রথম পদক্ষেপে আপনি এক্ষুনি মাইক্রোসফট এক্সেল খুলে “বেসিক পারসোনাল বাজেট” টেমপ্লেটটি খুলে আপনার প্রতিমাসে অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা এবং চিকিৎসার ফিক্সড ব্যয় বের করুন।

২. প্রতিমাসে আপনার আয়ের উৎসগুলো খুঁজে বের করুন। এবার আয় এবং ব্যয়ের মাঝে পার্থক্য বের করুন। যদি কোন উদ্বৃত্ত না থাকে তাহলে আয়ের উৎস সন্ধানে নেমে পড়ুন।

৩. খরচগুলোকে একটি তালিকার মধ্যে নিয়ে আসুন এবং একটু খুজে দেখুন কোন দিক দিয়ে খরচ কমানো যায় কিনা। অগ্রাধীকার অনুযায়ী খরচ করুন।

৪. একটি প্রবাদ আছে “আয় বুঝে ব্যয় করো” যা বর্তমানে পরিবর্তিত হয়ে বলা হয় “ব্যয় বুঝে আয় করো”। এর অর্থ হলো আপনার মাসিক খরচের সাথে সঞ্চয়ের জন্য ১০% বা ১৫% কে খরচ হিসেবে নির্ধারন করুন। এই ১০% আপনাকে হয় বর্তমান আয় থেকে খরচ হিসেবে বের করতে হবে। নয়তো ১০% আপনাকে নতুন উৎস থেকে আয় করতে হবে।

৫. লক্ষ্য ছাড়া কোন কিছু করা ঠিক নয়। তেমনি সঞ্চয়ও লক্ষ্য ছাড়া করা উচিত নয়। আপনি একটি লক্ষ্য নির্ধারন করুন। স্বল্প মেয়াদী বা দীর্ঘ মেয়াদী সঞ্চয় লক্ষ্য হতে পারে। দেশের বাইরে ঘুরতে যাবার জন্য বা বিদেশে পড়তে যাবার জন্য বা ফ্ল্যাটের ডাউন পেমেন্ট জমা দেবার জন্য। আবার কোন ব্যবসায় বিনিয়োগের লক্ষ্যেও সঞ্চয়ের পরিকল্পনা করতে পারেন। একটি লক্ষ্য নির্ধারন করে শুরু দিন।

৬. ছোটবেলায় মাটির ব্যাংকে টাকা রেখে জমিয়েছি। বড় বেলায় অবশ্যই আপনাকে একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে আপনার সঞ্চয় পার্টনার বানাতে হবে। অনেকে আছেন ব্যাংকে সঞ্চয়ী হিসেবে খুলে ফেলেন বা অনেকে কিস্তি ভিত্তিক সঞ্চয় আমানত হিসেবেও কোন একটি ব্যাংকের সাথে চুক্তিবদ্ধ হন। এছাড়া আরো অনেক উপায় আছে। অভিজ্ঞ কারো সাথে একটু পরামর্শ করে নিতে পারেন।

৬. আরেকটি উপায় হলো ব্যাংকের সাথে এমন একটি সিস্টেম করে নিতে হবে যেন আপনার নির্দিষ্ট পরিমান সঞ্চয়ের কিস্তি অটোমেটিক আপনার সাধারন সঞ্চয় একাউন্ট থেকে কেটে নেয়। অনেক সময় নিজের হাতে টাকা সঞ্চয় একাউন্টে রাখতে কষ্ট হয়। মনে হয় আচ্ছা আজকে এই জিনিসটা কিনে ফেলি, আগামী মাসে একসাথে দুইমাসেরটা একবারে জমা দিয়ে দেবো। সেই দুইমাস আর আসে না।

৭. কি পরিমান সঞ্চয় হচ্ছে সেটা নিরীক্ষণ করুন।

যাইহোক, সঞ্চয়ের অভ্যাস এবং পরিকল্পনা দুইটাই থাকা চাই। তাই বলে আমি বলছি না জীবনকে একদম তেজপাতা বানিয়ে সঞ্চয় করতে হবে। সবই চলবে কিন্তু পরিকল্পনা অনুযায়ী। ধরুন আগামী শীতে ৭ দিনের জন্য কক্সবাজারের কোন একটি পাঁচতারকা হোটেলে অবকাশ যাপন করতে যাবেন। হিসেব করে দেখুন কত লাগবে। তারপর জমানো শুরু করে দিন। পরিশেষে আমার একটি পছন্দের প্রবাদ উল্লেখ করছি

“It’s not about how much money you make. It is about how you save it”

লেখকঃ

কে. এম. হাসান রিপন, নির্বাহী পরিচালক, বাংলাদেশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইন্সটিটিউট

ইমেইলঃ kmhasan.ripon@gmail.com